আবারও ভোজ্যতেলের ভ্যাট ১৫ শতাংশপ্রত্যক্ষ কর বাড়ানোর সুপারিশ মেট্রো চেম্বারেরউচ্চ মূল্যস্ফীতির কারণে বৈশ্বিক মন্দার আশঙ্কা উৎসে কর কর্তন: ব্যাখ্যা চেয়ে এনবিআরকে তিন ব্যাংকের চিঠিমিয়ানমারের অর্থনীতি পতনের দ্বারপ্রান্তে
No icon

আয়কর (ইনকাম ট্যাক্স) যেভাবে দেবেন

করদাতাদের অনেকেই বেশ দক্ষতার সঙ্গে রিটার্ন ফরম পূরণ ও কর পরিশোধ করে থাকেন। কিন্তু অনেকেই আছেন, যাদের এ বিষয়ে বিস্তারিত ধারণা নেই। আয়কর রিটার্নে কী কী তথ্য দিতে হবে, রিটার্নের সঙ্গে কোন কোন নথিপত্র জমা দিতে হবে, কোন আয় অবশ্যই উল্লেখ করা দরকার- এসব বিষয়ে অনেকের জানার ঘাটতি রয়েছে। যথাযথ তথ্য রিটার্নে উল্লেখ না করা বা ভুল করায় নানা জটিলতায়ও পড়েন। বিশেষত নতুন করদাতার ক্ষেত্রে এ ধরনের ঘটনা বেশি ঘটে। করদাতারা যাতে সহজে সঠিকভাবে রিটার্ন ফরম পূরণ করতে পারেন, সেজন্য এনবিআর তার ওয়েবসাইটে করবিষয়ক বিভিন্ন তথ্য দিয়ে রেখেছে।আয়কর আইন অনুযায়ী করের আওতায় পড়ে ৯ ধরনের আয়। এর একটি হলো চাকরি থেকে আয় বা বেতন। ব্যবসা এবং বাড়িভাড়া থেকে আয় করের আওতায় পড়ে।

বাকিগুলোর মধ্যে রয়েছে সম্পত্তি বিক্রি অথবা হস্তান্তর করে পাওয়া অর্থ, সঞ্চয়পত্র, বন্ড ও ব্যাংকে রাখা আমানতের সুদ আয়, কৃষি থেকে আয়, ফার্মের মুনাফা বা আয়ের অংশ এবং স্বামী অথবা স্ত্রী অথবা অপ্রাপ্ত বয়স্ক সন্তানের আয়। এ ছাড়া আরও কয়েকটি বিষয় করদাতার সঙ্গে সম্পৃক্ত থাকলে আয়কর দেওয়ার বিধান রয়েছে। যেমন, করদাতার গাড়ি থাকলে বা নির্দিষ্ট পরিমাণের বেশি সম্পদ থাকলে কর দিতে হবে। কর দিতে হলে একটি নির্দিষ্ট রিটার্ন ফরম পূরণ করে সেখানে করদাতার আয়ের বিস্তারিত বিবরণ উল্লেখ করে মোট আয় নির্ধারণের পর কর পরিশোধ করতে হয়। করদাতার কিছু আয়কে এনবিআর করমুক্ত রেখেছে। আবার কিছু ক্ষেত্রে বিনিয়োগ থাকলে করছাড় পাওয়া যায়। আবার যেসব ক্ষেত্রে উৎসে কর কেটে রাখা হয়, করদাতাকে সেই উৎসে কর কাটার প্রত্যয়ন নিয়ে রিটার্নের সঙ্গে জমা দিতে হয়। এতে উৎসে পরিশোধ করা কর সমন্বয় করে থাকেন করদাতা।