বাণিজ্য মেলায় সেরা ভ্যাট দাতার সম্মাননা পেয়েছে ১০ প্রতিষ্ঠানবন্দরে পণ্য আসার ৩ দিনের মধ্যে কাগজপত্র জমা না দিলে জরিমানাঢাকা ট্যাকসেস্ বার এসোসিয়েশন ২০২০-২০২১ এ ইকবাল সভাপতি ও মামুন সম্পাদক নির্বাচিতপুঁজিবাজারে আসছে রবি, শেয়ার ছাড়বে ৫২ কোটিকর বাড়ার পর মুঠোফোনের অবৈধ আমদানি বাড়ছে: বিএমপিআইএ
No icon

ভারতীয় পণ্য পরিবহনে বাংলাদেশের বন্দর ব্যবহার চুক্তি অনুমোদন

চট্টগ্রাম ও মোংলা সমুদ্রবন্দর ব্যবহার করে ভারতকে দেশটির উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্যে পণ্য পরিবহনের জন্য চুক্তির খসড়ায় অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। গতকাল প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকে এ-সংক্রান্ত চুক্তির খসড়ায় অনুমোদন দেয়া হয়। বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এ বিষয়ে ব্রিফ করেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম। তিনি বলেন, ভারতের সঙ্গে স্বাক্ষরের জন্য এগ্রিমেন্ট অন দ্য ইউজ অব চট্টগ্রাম অ্যান্ড মোংলা পোর্ট ফর মুভমেন্ট অব গুডস টু অ্যান্ড ফ্রম ইন্ডিয়া বিটুইন দ্য পিপলস রিপাবলিক অব বাংলাদেশ অ্যান্ড দ্য রিপাবলিক অব ইন্ডিয়ার খসড়ায় অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব জানান, ভারতের সঙ্গে স্বাক্ষরের জন্য চট্টগ্রাম ও মোংলা বন্দরের যোগাযোগের জন্য যে কমিউনিকেশন নেটওয়ার্ক তৈরি করা হচ্ছে তার চুক্তি এটি। এতে নেপাল ও ভুটান যদি ইচ্ছা প্রকাশ করে, তবে যুক্ত হতে পারবে এমন সুযোগ রাখা হয়েছে।

মোহাম্মদ শফিউল আলম বলেন, বাংলাদেশ-ভারতের মধ্যে চলমান সৌহার্দপূর্ণ সম্পর্ক সুদীর্ঘ করা এ চুক্তির উদ্দেশ্য। চট্টগ্রাম ও মোংলা বন্দর ব্যবহার করে ভারতীয় পণ্য দেশটির উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্যে পরিবহন করা হবে। দেশের অভ্যন্তরে পণ্যসামগ্রী পরিবহনের ক্ষেত্রে শুধু বাংলাদেশের যানবাহন ব্যবহার করা হবে। বাংলাদেশের মধ্য দিয়ে পণ্য পরিবহনের ক্ষেত্রে মেনে চলতে হবে আন্তর্জাতিক ও দেশীয় আইন। পণ্যবাহী কার্গো শনাক্তকরণের জন্য ট্র্যাকিং সিস্টেম ব্যবহার করা হবে। আমাদের আইন অনুযায়ী শুল্ক ও ট্যাক্স ভারত দেবে।

চট্টগ্রাম ও মোংলা বন্দরের সক্ষমতা অনুসারে পণ্য পরিবহনে অগ্রাধিকার দেয়া হবে জানিয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, বাংলাদেশের মধ্য দিয়ে পণ্য পরিবহনের জন্য আন্তর্জাতিক আইন অনুসারে শুল্ককর ব্যতীত ফি ও পরিবহন খরচ আদায় করা হবে। বাংলাদেশের স্থলবন্দর ব্যবহারের ক্ষেত্রে আদায় করা হবে স্থলবন্দরের দক্ষতা বৃদ্ধির ফিও।

চুক্তি অনুযায়ী, নৌ-সচিবদের নেতৃত্বে গঠিত ইন্টারগভর্নমেন্ট কমিটির মাধ্যমে উদ্ভূত সমস্যার নিরসন করা হবে। এছাড়া উভয় দেশের কর্মকর্তাদের সমন্বয়ে গঠন করা হবে কাস্টমস অ্যান্ড পোর্ট সাব গ্রুপ। জরুরি প্রয়োজনে বা রাষ্ট্রের নিরাপত্তার স্বার্থে যেকোনো পক্ষের চুক্তি বাস্তবায়ন সাময়িকভাবে স্থগিত করার সুযোগ রয়েছে। চুক্তিটি পাঁচ বছরের জন্য সম্পাদিত হবে। এটি স্বয়ংক্রিয়ভাবে আরো পাঁচ বছর বলবৎ থাকবে। তবে ছয় মাসের নোটিসে যেকোনো পক্ষ চুক্তিটি বাতিল করতে পারবে।

এছাড়া গতকালের বৈঠকে বাংলাদেশ লোকপ্রশাসন প্রশিক্ষণ কেন্দ্র আইন ২০১৮-এর খসড়া এবং জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড আইন ২০১৮-এর খসড়ার চূড়ান্ত অনুমোদন দেয়া হয়েছে। মন্ত্রিপরিষদ সচিব জানান, বাংলাদেশ লোকপ্রশাসন প্রশিক্ষণ কেন্দ্র ১৯৮৪ সালের একটা অর্ডিন্যান্স দ্বারা পরিচালিত হতো। এটিকে আইনে পরিণত করা হয়েছে। আগে এটি ইংরেজিতে ছিল, এখন বাংলায় হচ্ছে। এছাড়া তেমন কোনো পরিবর্তন নেই। তবে বোর্ড অব গভর্ন্যান্সে সামান্য পরিবর্তন আনা হচ্ছে। আগে জনপ্রশাসনমন্ত্রী ও প্রতিমন্ত্রী এর কোনো পদে ছিলেন না। এখন তারা পদাধিকারবলে এর সদস্য থাকবেন।

রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠান ওয়েস্ট জোন পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেড ও হেক্সিন ইলেকট্রিক্যাল লিমিটেড চায়নার যৌথ উদ্যোগে কোম্পানি গঠনের লক্ষ্যে সংশ্লিষ্ট জয়েন্ট ভেঞ্চার এগ্রিমেন্ট, কোম্পানির মেমোরেন্ডাম অব অ্যাসোসিয়েশন ও আর্টিকেল অব অ্যাসোসিয়েশনের খসড়ার অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা।

উল্লেখ্য, গতকাল বৈঠকের শুরুতেই ন্যাশনাল স্কিলস ডেভেলপমেন্ট অথরিটি বা জাতীয় দক্ষতা উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের লোগো উন্মোচন করেন প্রধানমন্ত্রী।