জাতীয় আয়কর দিবস আজরিটার্ন দাখিলের সময় বাড়াতে এনবিআরকেআগামীকাল শেষ দিন, রিটার্ন জমা দিতে কর অঞ্চলে ভিড়করদাতা ও গ্রহীতার সম্পর্ক বন্ধুত্বপূর্ণ হতে হবেঢাকা উত্তরে করের বোঝা চেপেছে মানুষের ওপর
No icon

এলডিসি থেকে উত্তরণের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় রাজস্ব ও শুল্ককাঠামোয় সংস্কার দরকার

স্বল্পোন্নত দেশের (এলডিসি) তালিকা থেকে বেরিয়ে উন্নয়নশীল দেশ হলেই আন্তর্জাতিক বাজারে পণ্য রপ্তানির ক্ষেত্রে বাংলাদেশ শুল্কমুক্ত সুবিধা হারাবে। একই সঙ্গে দেশে উৎপাদিত পণ্য বহির্বিশ্বে রপ্তানির ক্ষেত্রে ৮-১৬ শতাংশ শুল্ক দিতে হবে। এ চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করে স্থানীয় শিল্পকে সুরক্ষায় পণ্য আমদানির ক্ষেত্রে বিদ্যমান নিয়ন্ত্রণমূলক শুল্ককাঠামোয় পরিবর্তন আনতে হবে। এ ছাড়া বিদেশি বিনিয়োগ আকর্ষণে দেশের রাজস্ব ও শুল্ককাঠামোর আমূল সংস্কার ও অটোমেশন নিশ্চিত করতে হবে।
ঢাকা চেম্বার আয়োজিত প্রতিযোগিতামূলক শুল্ককাঠামো: প্রেক্ষিত স্বল্পোন্নত দেশে উত্তরণ শীর্ষক কর্মশালায় বক্তারা বলেন। এলডিসি থেকে উত্তরণের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় দেশের রাজস্ব ও শুল্ককাঠামোর আমূল সংস্কার, নীতিমালা সহজীকরণ, দক্ষতা উন্নয়ন, বাণিজ্য সহযোগী দেশগুলোর সঙ্গে মুক্তবাণিজ্য চুক্তির পাশাপাশি আঞ্চলিক অর্থনৈতিক সংস্থাগুলোতে নিজেদের অন্তর্ভুক্তি জরুরি।

বাংলাদেশ গত অর্থবছরে ৫ হাজার ২০০ কোটি মার্কিন ডলারের পণ্য রপ্তানি করেছে। শীর্ষ রপ্তানি হওয়া ২০টি পণ্যের মধ্যে ১৮টিই শুল্ক ও কোটামুক্ত সুবিধা ভোগ করেছে। এলডিসি উত্তরণের পর আমাদের উদ্যোক্তারা এ সুবিধাপ্রাপ্তি থেকে বঞ্চিত হবেন। এ অবস্থায় বৈশ্বিক বাজারের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় বেসরকারি খাতকে দক্ষতা ও সক্ষমতা বাড়াতে এখনই কার্যকর উদ্যোগ নিতে হবে। এ জন্য বাণিজ্য সহযোগী দেশগুলোর সঙ্গে দ্রুততম সময়ে মুক্তবাণিজ্য চুক্তি স্বাক্ষর (এফটিএ) করা প্রয়োজন। এ ছাড়া পরিবর্তিত বৈশ্বিক বাণিজ্যের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় দেশে একটি ন্যাশনাল ট্যারিফ পলিসি থাকা দরকার।