সুগন্ধি চাল রপ্তানি নিষিদ্ধ করলো সরকারকরপোরেট করছাড়ে শর্ত তুললে বিনিয়োগ বাড়বে২২-২৩ নতুন অর্থবছরে বাজেট পাস আজঅগ্রিম করে বিপাকে নির্মাণ শিল্পএসএমই ঋণে নতুন শঙ্কা ট্যাক্স রিটার্ন জমার প্রমাণপত্র
No icon

সংবাদপত্রের করপোরেট করহার ১০ থেকে ১৫ শতাংশ করার প্রস্তাব সম্পাদকদের

গতকাল বৃহস্পতিবার আগামী ২০২২-২৩ অর্থবছরের বাজেট নিয়ে এক মতবিনিময় সভায় সম্পাদকেরা অর্থমন্ত্রীর আ হ ম মুস্তফা কামাল প্রতিবছরের মতো এবারও আগামী বাজেট সামনে রেখে প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সম্পাদকদের সঙ্গে বৈঠকে বসেন অর্থমন্ত্রী । আগামী ২০২২-২৩ অর্থবছরের বাজেট নিয়ে এক মতবিনিময় সভায় সম্পাদকেরা অর্থমন্ত্রীর আ হ ম মুস্তফা কামালের কাছে এসব দাবি তুলে ধরেন। সভায় সম্পাদকেরা সংবাদপত্রশিল্পের কাঁচামালের ওপর অগ্রিম আয়কর (এআইটি) ৫ শতাংশ প্রত্যাহারেরও দাবি জানান।

করোনাভাইরাসের প্রভাবে সংবাদপত্রশিল্প কঠিন সময় পার করছে। সেবাশিল্প হওয়া সত্ত্বেও তৈরি পোশাকশিল্পের চেয়ে সংবাদপত্রশিল্পকে বেশি করপোরেট কর গুনতে হচ্ছে। তাই এ খাতের করপোরেট করহার ৩০ শতাংশ থেকে কমিয়ে ১০ থেকে ১৫ শতাংশে নামিয়ে আনার দাবি করেছেন দেশের বিভিন্ন দৈনিকের সম্পাদকেরা।

এ ছাড়া বিজ্ঞাপন আয়ের ওপর উৎসে কর (টিডিএস) বিদ্যমান ৪ শতাংশ থেকে কমিয়ে ২ শতাংশ করার প্রস্তাব করেছেন সম্পাদকেরা। সংবাদপত্রের প্রধান কাঁচামাল নিউজপ্রিন্টের ওপর আরোপিত ৫ শতাংশ আমদানি শুল্ক প্রত্যাহারেরও দাবি জানিয়েছেন সম্পাদকেরা।

সভায় বাংলাদেশ প্রতিদিন সম্পাদক নঈম নিজাম বলেন, সারা বিশ্বেই সংবাদপত্র এখন কঠিন সময় পার করছে। দেশের পোশাক খাতে যেখানে করপোরেট করহার ১০ থেকে ১২ শতাংশ, সেখানে সেবাশিল্প সংবাদপত্রে এ করহার ৩০ শতাংশ। তাই সংবাদপত্রের জন্য এ করহার ১০ থেকে ১৫ শতাংশে নামিয়ে আনার প্রস্তাব করেন তিনি।
সম্পাদক নাঈমুল ইসলাম খান বলেন, সংবাদপত্রের সবচেয়ে বড় জটিলতা হলো বিভিন্ন সরকারি প্রতিষ্ঠান থেকে বকেয়া বিল না পাওয়া। এক কোটি টাকা বিজ্ঞাপন বিল পাওনা থাকলে দেওয়া হচ্ছে পাঁচ লাখ টাকা। কারণ হিসাবে বলা হচ্ছে, বাজেট নেই। বিজ্ঞাপনের বকেয়া বিল পরিশোধ করতে অর্থমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ চান তিনি।