ভ্যাট ও আয়কর সনদ জুয়েলারি শো-রুমে প্রদর্শন করুন : বাজুসকরজাল সম্প্রসারণে এনবিআরের মহাপরিকল্পনা, ‘টার্গেট’ বাড়িওয়ালারাওজ্বালানি খাতে বকেয়া শুল্ককর ৫৫ হাজার কোটি টাকাবাড়বে ভ্যাট, বাড়তি দামের চাপে ভুগতে হবে ভোক্তাদের। অতিরিক্ত শুল্ক আরোপ দাম বাড়াচ্ছে পাইপের
No icon

বাজেটে মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে সুস্পষ্ট দিকনির্দেশনা নেই

সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অর্থ উপদেষ্টা ড. এবি মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম বলেছেন, বাংলাদেশ ব্যাংক টাকা ছাপিয়ে অর্থনৈতিক সংকট সামাল দেওয়ার চেষ্টা করবে। কিন্তু এতে মুদ্রাস্ফীতি ও মূল্যস্ফীতিকে উসকে দেবে। দেশে বর্তমানে দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতিতে মানুষের কষ্ট হচ্ছে। কিন্তু আগামী অর্থবছরের বাজেটে মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে সুস্পষ্ট কোনো দিকনির্দেশনা নেই। সেই সঙ্গে ক্রমবর্ধমান আয় বৈষম্যের কারণে সামাজিক অসন্তোষ তৈরি হতে পারে। রিজার্ভের পতনের কারণে ডলারের বিপরীতে টাকার মান কমছে ফলে মূল্যস্ফীতি বাড়ছে। এসব অনেক বিষয়ই অনুপস্থিত বাজেট বক্তব্যে।

রাজধানীর এফডিসিতে এবারের বাজেট টেকসই উন্নয়নে সহায়ক হবে কিনা এ বিষয়ে এক ছায়া সংসদে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। ইউসিবি পাবলিক পার্লামেন্ট শিরোনামে প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠানটি আয়োজন করে ডিবেট ফর ডেমোক্রেসি। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সংস্থার চেয়ারম্যান হাসান আহমেদ চৌধুরী কিরণ।

মির্জ্জা আজিজ আরও বলেন, আমাদের রিজার্ভের হিসাব অতিরঞ্জিত, যা আন্তর্জাতিক মানের নয়। প্রস্তাবিত বাজেটে জিডিপির টার্গেট ৭ দশমিক ৫ শতাংশ ধরা হয়েছে। তবে তা বাস্তবতা বিবর্জিত। বাংলাদেশে কর আহরণের পরিমাণ বিশ্বের সর্বনিু। তাই অধিক কর আহরণের জন্য সুস্পষ্ট পরিকল্পনা দারকার। বিদ্যুৎ, গ্যাসের সমস্যা দূর করে সুশাসন প্রতিষ্ঠা করতে না পারলে বেসরকারি খাতের বিনিয়োগ ব্যাহত হবে। এবারের বাজেট আলোচনায় অর্থমন্ত্রী পাচারকৃত টাকা দেশে ফেরত না আসা প্রসঙ্গে টাকা পাচার না হওয়ার যে মন্তব্য করেছেন তা সঠিক নয়। ব্যাংকিং খাতে সুশাসনের অভাবে খেলাপি ঋণের পরিমাণ বাড়ছে। এ অবস্থার উত্তরণ না হলে আমানতকারীদের আস্থাহীনতা বাড়বে। জাতীয় সংসদে সরকারি দলের একক আধিপত্য থাকায় বাজেট নিয়ে কার্যকর আলোচনা হয় না। এ ছাড়া বাজেট প্রণয়ন প্রক্রিয়ায় জনঅংশগ্রহণ সন্তোষজনক নয়।

ছায়া সংসদে স্টেট ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশকে পরাজিত করে বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব বিজনেস অ্যান্ড টেকনোলজির বিতার্কিকরা চ্যাম্পিয়ন হন। প্রতিযোগিতায় বিচারক ছিলেন অধ্যাপক আবু মুহাম্মদ রইস, ড. এসএম মোর্শেদ, সাংবাদিক ড. শাকিলা জেসমিন, সাংবাদিক দৌলত আক্তার মালা ও সাংবাদিক বাবু কামরুজ্জামান। প্রতিযোগিতা শেষে বিজয়ী দলকে ট্রফি ও সনদপত্র প্রদান করা হয়।

বিতর্ক অনুষ্ঠানে ডিবেট ফর ডেমোক্রেসির পক্ষে বাজেট পাশের আগে ১০ দফা সুপারিশ বিবেচনায় নেওয়ার অনুরোধ জানানো হয়েছে। এরমধ্যে রয়েছে-আয়কর প্রদানযোগ্য নয় এমন টিনধারী ব্যক্তিদের ২ হাজার টাকা কর প্রদান ও অভ্যন্তরীণ আকাশপথে ভ্রমণকর ২ শত টাকা প্রত্যাহার করা। এ ছাড়া জ্বালানি, বিদ্যুৎ ও গ্যাস সংকট সমাধানে দ্রুত পদক্ষেপগ্রহণ। সামাজিক নিরাপত্তা খাতে বরাদ্দ বাড়িয়ে বয়স্ক ভাতা, বিধাবা ভাতা ও প্রতিবন্ধী ভাতার পরিমাণ দ্বিগুণ করা।