আয়কর ফাইলে ত্রুটি থাকলে বিপদ থাকবে ৬ বছর পর্যন্তঅল্প সময়ে আয়কর রিটার্ন জমা দিতে হলে জেনে নিনকরসেবায় মেলার আমেজচাকরিজীবীরাই বেশি আয়কর রিটার্ন দেনঅর্ধেক কোম্পানি আয়কর রিটার্ন দেয় না
No icon

ভ্যাটের প্রক্রিয়া সহজ করার আহ্বান

করোনাকালে ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তাদের (এসএমই) টিকিয়ে রাখতে মূল্য সংযোজন কর (মূসক) বা ভ্যাটের প্রক্রিয়া সহজ করার আহ্বান জানিয়েছেন ব্যবসায়ী নেতারা। ছোট উদ্যোক্তাদের সুবিধার্থে কাঁচামাল আমদানিতে অগ্রিম কর হ্রাসের প্রস্তাব দিয়েছেন নেতারা। ঢাকা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (ডিসিসিআই) আয়োজনে গতকাল শনিবারঅর্থ আইন ২০২০ এবং মূল্য সংযোজন কর ও সম্পূরক শুল্ক আইন ২০১২ শীর্ষক অনলাইনভিত্তিক কর্মশালায় এসব কথা বলেন ব্যবসায়ী নেতারা। স্বাগত বক্তব্যে ডিসিসিআইয়ের সভাপতি শামস মাহমুদ বলেন, বাংলাদেশকে উন্নত অর্থনীতির দেশে পরিণত করতে কর-জিডিপি অনুপাত বাড়ানোর বিকল্প নেই। সে জন্য কর প্রদান পদ্ধতি সহজ করতে হবে। তিনি আরও বলেন, করোনায় ব্যবসা-বাণিজ্যের ক্ষতি সত্ত্বেও ব্যবসায়ীরা কর ও ভ্যাট দিয়ে যাচ্ছেন।

আগামী বছর অনলাইনে ভ্যাট ও ট্যাক্স রিটার্ন জমা দেওয়ার পদ্ধতি চালু করা সম্ভব হবে বলে মন্তব্য করেন এনবিআরের সদস্য আলমগীর হোসেন। তিনি বলেন, বিভিন্ন সময় করহার হ্রাস-বৃদ্ধির ফলে ব্যবসায়িক কর্মকাণ্ড পরিচালনায় বিঘ্ন ঘটে। পরিস্থিতির উত্তরণে দীর্ঘ মেয়াদে করনীতিমালা প্রণয়ন ও বাস্তবায়নে কাজ চলছে।

কর্মশালায় আরও বক্তব্য দেন ডিসিসিআইয়ের সহসভাপতি এন কে এ মবিন, কর পরামর্শক স্নেহাশীষ বড়ুয়া প্রমুখ।