সুগন্ধি চাল রপ্তানি নিষিদ্ধ করলো সরকারকরপোরেট করছাড়ে শর্ত তুললে বিনিয়োগ বাড়বে২২-২৩ নতুন অর্থবছরে বাজেট পাস আজঅগ্রিম করে বিপাকে নির্মাণ শিল্পএসএমই ঋণে নতুন শঙ্কা ট্যাক্স রিটার্ন জমার প্রমাণপত্র
No icon

১০ ব্যাংকের মূলধন ঘাটতি ২৭ হাজার কোটি টাকা

দেশের ১০টি ব্যাংক সম্মিলিতভাবে ২৭ হাজার ৫১ কোটি টাকার মূলধন ঘাটতিতে রয়েছে। মূলধন ঘাটতি থাকা এই ১০টি ব্যাংকের মধ্যে রয়েছে বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক, সোনালী ব্যাংক, রূপালী ব্যাংক, অগ্রণী ব্যাংক, বেসিক ব্যাংক, রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক, আইসিবি ইসলামিক ব্যাংক, বাংলাদেশ কমার্স ব্যাংক, জনতা ব্যাংক ও পদ্মা ব্যাংক লিমিটেড। ব্যাংকগুলোর অনিয়মই মূলত এত বড় আকারের মূলধন ঘাটতির জন্য দায়ী বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্ট বিশেষজ্ঞরা।

চলতি বছর মার্চের তথ্য অনুযায়ী, মূলধন ঘাটতিতে থাকা এই ১০টি ব্যাংকের মধ্যে সবচেয়ে বেশি মূলধন ঘাটতি রয়েছে বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংকের। ব্যাংকটির মূলধন ঘাটতির পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ১২ হাজার ৮৭৭ কোটি টাকায়, যা আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় ১৫ শতাংশ বেশি। একই সময়সীমার মধ্যে রূপালী ব্যাংকের মূলধন ঘাটতি ৭৬২ কোটি টাকা থেকে বেড়ে এক হাজার ৯৮৪ কোটি টাকায় পৌঁছায়।

ব্যাংকগুলোর এই সমস্যা সমাধানের জন্য তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নিতে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের প্রতি আহŸান জানিয়েছেন বিশ্লেষকরা। তারা মনে করছেন, এই ধরনের পরিস্থিতি আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের পাশাপাশি স্থানীয় ব্যাবসায়ীদের কাছে এমন একটি বার্তা দেয়Ñদেশের ব্যাংক খাত দুর্বল হয়ে পড়ছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা জানান, বিনিয়োগের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেয়ার আগে সাধারণত বিদেশি ব্যবসায়ীরা ব্যাংকগুলোর মূলধন ভিত্তির বিষয়টি বিবেচনায় রাখে। মূলধন ঘাটতির এমন অবস্থা বিদেশিদের বিনিয়োগের ক্ষেত্রে নিরুৎসাহিত করে।

মার্চে ব্যাংকগুলোয় খেলাপি ঋণের পরিমাণ উল্লেখযোগ্যহারে বেড়ে যাওয়ায় তা এই খাতের মূলধন ভিত্তিতে নেতিবাচক প্রভাব ফেলেছে। বাংলাদেশে পরিচালিত ৬০টি ব্যাংকে খেলাপি ঋণ ১৯ দশমিক ৩ শতাংশ বেড়ে এ বছর এক লাখ ১৩ হাজার ৪৪১ কোটি টাকায় দাঁড়িয়েছে।

এমন পরিস্থিতিতে ব্যাংকগুলোকে খেলাপি ঋণের বিপরীতে প্রচুর পরিমাণে নিরাপত্তা সঞ্চিতি (প্রভিশন) রাখতে হয়, যা শেষ পর্যন্ত তাদের মূলধন ভিত্তিতে প্রভাব ফেলে। মূলধন হ্রাসের কারণে ব্যাংকগুলোর মূলধন পর্যাপ্ততা অনুপাত (সিএআর) মার্চে ১১ দশমিক ৪১ শতাংশে নেমে আসে, এক বছর আগে যা ছিল ১১ দশমিক ৬৭ শতাংশ।

আমানতকারীদের সুরক্ষা, ব্যাংকের স্থিতিশীলতা ও আর্থিক ব্যবস্থাপনার দক্ষতা পরিমাপের মাপকাঠি হিসেবে বিবেচনা করা হয় মূলধন পর্যাপ্ততা অনুপাতকে (সিএআর)। যে ব্যাংকের মূলধন পর্যাপ্ততা অনুপাত বা সিএআর যত বেশি, অর্থনৈতিক দুর্যোগ মোকাবিলায় সে ব্যাংকের সক্ষমতা তত শক্তিশালী।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর সালেহউদ্দিন আহমেদ বলেন, মূলধনের ঘাটতি রয়েছে এমন কোনো ব্যাংক অন্য দেশের ব্যাংকগুলোর সঙ্গে সরাসরি ঋণপত্র (এলসি) খুলতে অসুবিধায় পড়ে। স্থানীয় ব্যাংকগুলোর মূলধন ভিত্তিকে শক্তিশালী করার জন্য কেন্দ্রীয় ব্যাংককে কার্যকর ভ‚মিকা নেয়ার জন্য পরামর্শ দেন তিনি।